ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে সামাজিক সংগঠন রংগন নাগরিক ডেভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন এর ত্রাণ সামগ্রী বিতরন


রুদ্রবাংলা প্রকাশের সময় : জুন ৮, ২০২৪, ২১:০৮ /
ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে সামাজিক সংগঠন রংগন নাগরিক ডেভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন এর ত্রাণ সামগ্রী বিতরন

জিয়াউর রহমান জিয়াঃ ঘূর্ণিঝড় রিমালের তান্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলা ও পিরোজপুর সদর উপজেলার অসহায় হগতদুরদ্র ও দুর্গতদের মাঝে প্রায় ৭০০ পেকেট খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন রংগন নাগরিক ডেভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন ।

গত বৃহস্পতিবার রোজ ৬/০৬/২০২৪ ইং তারিখে দুপুরে পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলায় প্রায় ২ শতাধিক এবং ৭ নং সংকরপাশা ইউনিয়নের গোলাম হায়দার উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে প্রায় ৫শতাধিক অসহায় মানুষদের মাঝে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়। এ সময় রংগন নাগরিক ডেভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও দৈনিক মুক্ত খবর পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি জনাবা শিমুলি আক্তার নিলু, প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ও দৈনিক নতুন দিন পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি এইচ এম আমিনুল ইসলাম আমান, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও দৈনিক মানব কন্ঠের তুরাগ উত্তরা প্রতিনিধি মোঃ রাসেল খান, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আসাদুল হক হাজরা হিমন, যুগ্ম মহাসচিব মোঃ স্বপন রানা সোহেল, ক্রীয়া ও সাংস্কৃতিক সচিব মোঃ মামুনুর রশীদ রানা, নির্বাহী সদস্য মোঃ আলমগীর হোসেন এর উপস্থিতিতে এসব খাদ্য সামগ্রী বিতরন করা হয়। সংগঠনের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান রাসেল খানের বক্তব্যে বলেন, প্রাকৃতিক ঘূর্ণিঝড়ে পিরোজপুরে ব্যাপক ধ্বংশযজ্ঞ চালিয়েছে ঘূর্ণিঝড় রেমাল। এতে এ অঞ্চলের মানুষের ক্ষতির পাশাপাশি গাছ পালা ও প্রাণীকূলের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। মানুষের জানের ক্ষতি না হলেও সম্পদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ মহাবিপদের সময় সরকারের পাশাপাশি বন্যা দুর্গতদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে রংগন নাগরিক ডেভোলাপমেন্ট ফাউন্ডেশন। রংগন নাগরিক ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন এর মহাসচিব জনাব এইচ এম আমিনুল ইসলাম আমান তার বক্ত্যবে বলেন, প্রাকৃতিক ঘূর্ণিঝড় রেমাল পিরোজপুরে যে ব্যাপক ধ্বংশযজ্ঞ চালিয়েছে, এতে আপনারা নানান ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আমরা রংগন নাগরিক ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সরকারের পাশাপাশি আপনাদের জন্য ঢাকা থেকে ত্রান সামগ্রী নিয়ে এসেছি। আমরা জানি এই ত্রান সামগ্রীতে আপনাদের সকল প্রকার সমস্যা সমাধান হবে না। তারপরও আমরা আমাদের সাধ্যমত ঈদ উপহারসহ এই ত্রান সামগ্রী নিয়ে আপনাদের পাশে দাড়াতে পেড়ে নিজেদের অনেক ধন্য মনে করছি। আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করবের আমরা যেন ভবিষ্যতে যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগে আপনাদের পাশে দাঁডাতে পারি। এবং আপনাদের ন্যায় সারাদেশে বিভিন্ন পাকৃতিক দুর্যোগসহ যে পরিস্থিতিতে আমরা সারাদেশের জনগনের পাশে থেকে যেন সহযোগিতা করতে পারি। মহাসচিবের বক্তব্যের পরপরই এ খাদ্র সামগ্রী বিতরন কার্যক্রম শুরুকরা হয়। এসময় অসহায়দের মাঝে চাল,ডাল, তেল, চিনি, লবন,আলু, পেয়াজ,হলুদ গুড়ো, মরিচ গুড়ো, সেমাই, চিনি,গুড়ো দুধসহ প্রায় ১৭টি আইটেম এক একটি প্যকেটের মধ্যে ভর্তি করে বিতরণ করা হয়। খাদ্র সামগ্রী বিতনের পর মহাসচিব গনমাধ্যমকে জানায় আমরা চেষ্টা করেছি একটি পরিবার যেন এ খাদ্য সামগ্রী পেয়ে সামনে আসন্ন কোরবানী ঈদ পর্যন্ত তাদের পরিবারের খাদ্যের চাদিহা মেটাতে পারে।

এলাকার হতদরিদ্ররা এ ত্রান পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে আনন্দের কান্নায় অশ্রসিক্ত হয়ে জানায়, অন্যান্য বছরের ছেয়ে এই বারে বন্যায় তারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু অন্যান্য বছর তারা বিভিন্ন ভাবে ত্রাণ বা সাহার্য্য সহযোগিতা পেলেও এইবার তারা এই রংগন নাগরিক ফাউন্ডেশন এর দেওয়া ত্রান পেয়ে তারা সবছেয়ে বেশি খুশি হয়েছেন। তাদের মধ্যে কয়েকজন জানায় এক একটি প্যাকেটে ১৫/১৭ কেজি খাদ্য দ্রব্য বা এত পরিমান আইটেম তাদের এই জীবনে কোন সংস্থাই দেয়নি। দৈনিক রুদ্র বাংলা পত্রিকার প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান জিয়া- সব সময় সামাজিক কাজের পাশে আছে এবং থাকবে ইনশাআল্লাহ ।