দক্ষিণখানে বাজার মনিটরিং করার সময় চাঁদাবাজদের হামলা শিকার এক সাংবাদিক


রুদ্রবাংলা প্রকাশের সময় : এপ্রিল ১২, ২০২৪, ০৯:৩১ /
দক্ষিণখানে বাজার মনিটরিং করার সময় চাঁদাবাজদের হামলা শিকার এক সাংবাদিক

 

মিজান বিন নুরঃ

গত ৬ এপ্রিল ২০২৪ ইং তারিখে আনুমানিক ৭ঃ৩০ মিনিটের সময় রাজধানীর দক্ষিণখান কাঁচাবাজার মনিটরিং এর কাজ করেন দৈনিক নবচেতনার সাংবাদিক মাসুদ রানা বিজয় এমন সময় দক্ষিণখান বাজার এলাকায় প্রধান সড়কের উপর ভ্যান গাড়িতে সবজির দোকান বসিয়ে দোকানদারি করতে থাকেন মোঃ কবির (৪৫) ও এর ছেলে লিটন (১৮)।

লিটনের সাথে ক্যামেরা চালু রেখে সবজির দাম জিজ্ঞেস করাতে। খারাপ ব্যবহার করে৷ সাথে সাথে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন সাংবাদিক মাসুদ রানা (বিজয়)। পরবর্তীতে তার নিজের দোকানের চাউল কিনার জন্য আল মদিনা নামক চাউলের আড়তে যান। সেখানে বসে থাকা অবস্থায় ১।আলামিন (৪৫) ২।কবির ৩।কবিরের ছেলে লিটন (১৮)৪।রিপন ৫।ফরহাদ ও অজ্ঞাত আরো ৫-৬ জন একত্রে হয়ে আগের চাঁন্দাবাজির নিউজের জের ধরে। পরিকল্পিতভাবে সাংবাদিক মাসুদ রানা বিজয় এর উপর হামলা চালায় গুরুতর আহত করে। নিজের দোকানের চাউল কেনার জন্য সাথে থাকা ১লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে সাংবাদিকের চিৎকার চেঁচামেচিতে আশেপাশের থাকা লোকজন এসে ৷ কুয়েত মৈত্রী সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে থাকা কর্তব্যরত ডাক্তার প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পা ভাঙা দেখে।সেরে বাংলা নগর সরকারি পঙ্গু হাসপাতালে রেফাট করেন। পঙ্গু হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার পা ভাঙ্গার চিকিৎসা শেষে ঠিকমতো ওষুধ খাওয়া ও ১২ দিন বেডরেস্টে থাকার পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে আবার ১২দিন পরে পরীক্ষার জন্য পঙ্গু হাসপাতালে যেতে বলেন।

 

গোপন সূত্রে জানা যায় ঃ আলআমিন(৪৫) ও কবির (৪৫) এই দুই জন প্রকৃত চাঁদাবাজ ও জোয়ারু দক্ষিণখান বাজার প্রধান সড়ক দখল করে দুইশত দোকান থেকে একশত টাকা হারে দিনপ্রতি চাঁদার টাকা আদাই করেন। ১।কবির(৪৫)ও ২।জুয়েল (৩৫)দক্ষিণখান বাজার রাস্তার পাশে মুরগির দোকান রয়েছে তার এদেরকে চাঁদাবাজি ও জোয়ার কাজে কেউ বাধা সৃষ্টি করলে আইনের লোক হয়েও। বেআইনিভাবে সেল্টার দাতা হিসেবে কাজ করেন দক্ষিনখান থানার এএসআই মোঃ আব্বাস। রাত দশটার পরে চাঁদা আদায়ের সমস্ত টাকার ভাগ বাটোয়ারা হয় দক্ষিণখান বাজারের একটি নয়া রাজনৈতিক অফিসে। ভাগের টাকা কে কত পান বিস্তারিত আসছে পরবর্তী নিউজে।