ভৈরবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব মোঃ জিল্লুর রহমানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত


রুদ্রবাংলা প্রকাশের সময় : মার্চ ২১, ২০২৪, ১৫:১৫ /
ভৈরবে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব মোঃ জিল্লুর রহমানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

জীবনের শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে হলেও ভৈরবকে জেলা করবো” প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপ্রতি আলহাজ্ব মো. জিল্লুর রহমানের ভৈরববাসীকে বলে যাওয়া এই শেষ দাবী পূরণের বিষয়ে আলোচনা করে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। ২০ মার্চ বুধবার ভৈরব আওয়ামী লীগ বেলা ১২টায় ভৈরব বাজার আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করেছে।

দিনটি উপলক্ষে দলীয় কার্যালয়ে সকালে দলীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, কোরআন খতম, জিল্লুর রহমানের প্রতিকৃতিত্বে পুস্পমাল্য অর্পণ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

আলোচনা সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি অধ্যাপক শামসুজ্জামান বাচ্চুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সেন্টু।

পৌর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আতিক আহমেদ সৌরভের সঞ্চালনায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভৈরব পৌর মেয়র আলহাজ্ব মো. ইফতেখার হোসেন বেনু, প্রয়াত রাষ্ট্রপতির একান্ত সচিব সাখাওয়াত উল্লাহ, কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন কাজল, উপজেলা পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ বুলবুল, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম বাকী বিল্লাহ প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা প্রয়াত রাষ্ট্রপতির বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বলেন, আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের দলের হাল না ধরলে আজ আওয়ামী লীগ বারবার সরকার গঠন করতে পারতো না। জিল্লুর রহমান শুধু দেশ ও দেশের মানুষদের জন্য কাজ করে গেছেন। জিল্লুর রহমানের একমাত্র পুত্র মাননীয় যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী নাজমুল হাসান পাপন চাইলেই ভৈরব জেলা হওয়া সম্ভব। বাবার স্বপ্ন পূরণে যেকোন আন্দোলনের মাধ্যমে পাপনের সাথে একাত্বতা ঘোষনা করবেন ভৈরব আওয়ামী লীগ। আলোচনা শেষে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হাফেজ হাবিবুর রহমান। দিনের সকল কর্মসূচীতে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগসহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।